BN/Prabhupada 0307 - title need to be fixed

From Vanipedia
Jump to: navigation, search
Go-previous.png Previous Page - Video 0306
Next Page - Video 0308 Go-next.png

title need to be added
- Prabhupada 0307


Lecture -- Seattle, October 2, 1968

প্রভুপাদঃ আপনার মন বলেছে, "চল, আমরা নতুন ইস্কন সোসাইটির কাছে যাই," তাই আপনার পা এখানে নিয়ে এসেছে। তাই মন... চিন্তা, অনুভূতি, কাজের কামনা করা, এগুলি মনের কাজ। তাই মন চিন্তা করে, অনুভব করে এবং তারপর কাজ করে। সুতরাং আপনাকে কৃষ্ণের চিন্তায় আপনার মনকে স্থির রাখতে হবে, কিন্তু কৃষ্ণের জন্য কাজ করতে হবে, শ্রী কৃষ্ণের জন্য অনুভব করতে হবে। এটি পুরোপুরি মনোযোগ। এ্কে সমাধি বলা হয়। আপনার মন বাইরে যেতে পারবে না। আপনি এমনভাবে আপনার মনকে সংযুক্ত করবেন যে মন শ্রীকৃষ্ণ সম্পর্কে চিন্তা করবে, কৃষ্ণের জন্য অনুভব করবেন, কৃষ্ণের জন্য কাজ করবেন। এটি পুরোপুরি ধ্যান।

যুবক(২)ঃ আপনার চোখ দিয়ে কি করবেন? চোখ বন্ধ করুন?

প্রভুপাদঃ হ্যাঁ, চোখ হল ইন্দ্রিয়ের মধ্যে একটি। মন একটি সাধারন ইন্দ্রিয় এবং গভর্নর জেনারেলের অধীনে, বিশেষ কমিশনার বা অধস্তন কর্মকর্তা। তাই চোখ, হাত, পা, জিহবা, দশটি ইন্দ্রিয়, তারা মনের অধীনে কাজ করছে। মনের অভিব্যাক্তি হয়, তাই ইন্দ্রিয়ের মাধ্যমে মন প্রকাশ করা হয়। অতএব, যতক্ষণ না আপনি আপনার ইন্দ্রিয়ের সাথে জড়িত হচ্ছেন, ততক্ষণ আপনার মনের চিন্তা, অনুভূতির, কোন সম্পূর্ণতা নেই। অস্থিরতা থাকবে। যদি আপনার মন কৃষ্ণ সম্পর্কে চিন্তা করে এবং আপনার চোখ অন্য কিছু দেখে, বাধা বা দ্বন্দ্ব হবে। আপনাকে প্রথমে শ্রী কৃষ্ণের প্রতি আপনার মনকে সংযুক্ত করতে হবে। এবং তারপর অন্যান্য সমস্ত ইন্দ্রিয়কে কৃষ্ণের সেবায় নিযুক্ত করা যাবে। এটাই ভক্তি।

সর্বপাধি-বিনির্মুক্তং তৎপরত্বেন নির্মলম হৃষিকেন হৃষীকেশ-সেবনম ভক্তির উচ্যতে (চৈ.চ.মধ্য ১৯.১৭০)

হৃষীকেশ, হৃষীকেশ মানে ইন্দ্রিয়। যখন আপনি ইন্দ্রিয়কে, ইন্দিয়ের প্রভুর সেবায় লাগাবেন... কৃষ্ণকে ঋষিকেশ বলা হয় বা ইন্দ্রিয়ের মালিক বলা হয়। ইন্দ্রিয়ের মালিক মানে, বোঝার চেষ্টা করুন। এই হাতের মত । হাত খুব ভালভাবে কাজ করছে, কিন্তু যদি এটি শক্তিহীন থাকে অথবা কৃষ্ণ যদি শক্তি ফিরিয়ে নেন, তাহলে আপনার হাত অর্থহীন। আপনি এটি ঠিক করতে পারেন না যেহেতু আপনি আপনার হাতের মালিক নয়। আপনি ভুল ভাবছেন যে "আমি আমার হাতের মালিক।" কিন্তু আসলে, আপনি মালিক না। মালিক কৃষ্ণ। অতএব, যখন আপনার ইন্দ্রিয়, ইন্দ্রিয়ের প্রভুর সেবা করবে, এটা ভক্তি, ভক্তিমূলক সেবা বলা হয়। এখন ইন্দ্রিয় আমাদের উপাধির সাথে সংযুক্ত। আমি মনে করি "এই শরীর আমার স্ত্রী বা আমি বা তার সন্তুষ্টি জন্য," অনেক ধরনের জিনিস, "আমার দেশ, আমার সমাজ।" এগুলি উপাধী। কিন্তু যখন আপনি আধ্যাত্মিক পর্যায়ে এসেছেন, আপনি বুঝতে পারবেন যে "আমি এই পরমের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ।" অতএব, আমার কার্যক্রম পরমকে সন্তুষ্টর জন্য হওয়া উচিত। "এটিকে ভক্তি বলা হয়। সর্বপাধি-বিনিমুক্তং (চৈ.চ.মধ্য ১৯.১৭০), সব উপাধী থেকে মুক্ত হওয়া। যখন আপনার ইন্দ্রিয় শুদ্ধ করা হয় এবং যখন তারা ইন্দ্রিয় ইন্দ্রিয়ের মালিকের সেবায় নিযুক্ত হয়, এটি কে বলা হয় কৃষ্ণ ভাবনামৃতের কার্য। আপনার প্রশ্ন কি? তাই ধ্যান, মনের সংযুক্তি, সেই ভাবে হওয়া উচিত। তাহলে এটি একেবারে সঠিক হবে। অন্যথায়, মন চলনশীল এবং পরিবর্তিত হয় যদি আপনি এটাকে একটি নির্দিষ্ট সেবার উপর না রাখেন ... সংযুক্ত উপায় মানে ... মন কিছু করতে চায়, কারণ মনের কাজ অনুভূতি, অনুভব করা এবং কাজ করা। তাই আপনি এমনভাবে আপনার মনকে প্রশিক্ষিত করতে হবে যে আপনি কৃষ্ণ সম্পর্কে চিন্তা করবেন, আপনি কৃষ্ণের জন্য অনুভব করবেন, আপনি কৃষ্ণের জন্য কাজ করবেন। তারপর এই সমাধি। এটি সঠিক ধ্যান।