BN/Prabhupada 0374 - ভজ হু রে মন তাৎপর্য ভাগ ১

From Vanipedia
Jump to: navigation, search
Go-previous.png Previous Page - Video 0373
Next Page - Video 0375 Go-next.png

ভজ হু রে মন তাৎপর্য ভাগ ১
- Prabhupāda 0374


Purport to Bhajahu Re Mana -- San Francisco, March 16, 1967

ভজ হু রে মন শ্রী-নন্দ-নন্দন-অভয়-চরনারবৃন্দ রে। ভজ, ভজ মানে পূজা; হু, হ্যাঁলো,মন, মন। কবি গোবিন্দ দাস, একজন মহান দার্শনিক ও প্রভুর ভক্ত, তিনি প্রার্থনা করছেন। তিনি তাদর মন অনুরোধ করছে, কারণ মন বন্ধু এবং মন প্রত্যেকের শত্রু। যদি কেউ তার মনকে কৃষ্ণ ভাবনায় প্রশিক্ষন করতে পারে, তাহলে তিনি সফল। যদি সে তার মনকে প্রশিক্ষিত করতে না পারে, তাহলে জীবন ব্যর্থ। অতএব, গোবিন্দ দাস কৃষ্ণের মহান ভক্ত ... তাঁর নাম কেবলমাত্র নির্দেশক, গোবিন্দ দাস। গোবিন্দ, কৃষ্ণ এবং দাস মানে সেবক। এটি সব ভক্তদের মনোভাব। তারা সবসময় এটি করা, এটি দাস দাসত্ব, যার মানে সেবক। তাই গোবিন্দ দাস প্রার্থনা করছেন, "হে আমার প্রিয় মন, আপনি নন্দের পুত্রকে উপাসনা করার চেষ্টা করুন, যে অভয় চরন, যার চরন পদ্ম সুরক্ষিত, যেখনে কোন ভয় নেই।" অভয়,অভয় মানে যেখানে কোন ভয় নেই, এবং চরন , চরন মানে পাদ পদ্ম। তাই আপনার মনকে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে, "হে আমার প্রিয় মন, দয়া করে, আপনি নিজেকে নির্ভীক নন্দের পুত্রের উপাসনায় ব্যস্ত থাকুন।" ভজ হু রে মন শ্রী-নন্দ-নন্দন। নন্দ-নন্দন মানে নন্দ মহারাজের পুত্র, কৃষ্ণ। এবং তার চরন কমল অভয়, নির্ভীক। তাই গোবিন্দ দাস আপনার মনকে অনুরোধ করছেন, "দয়া করে আপনি কৃষ্ণের দিব্য চরন পদ্মের সেবায় লেগে থাকুন।" যতটা অন্যান্য বিষয় উদ্বিগ্ন হয় ... এবং তিনি বলছেন যে দুর্লভ মানব জন্ম। দুর্লভ মানে বিরল। মানব জন্ম মানে এই মানুষ্য জীবন। এটি একটি খুব দীর্ঘ চক্রাকারে আসে। একটি সুযোগ কৃষ্ণ সচেতন হতে দেওয়া হয় যাতে আমরা জন্ম ও মৃত্যুর চক্র থেকে বের হতে পারি। অতএব, তিনি সুপারিশ করে যে এই জীবন, মানুষ্য জীবন, খুব গুরুত্বপূর্ণ, বিরল। দুর্লভ মানে...দুঃ মানে খুব মুশকিল, এবং লভ মানে প্রাপ্ত। তাই নির্বোধ মানুষ, তারা জানে না, এই মানব জীবন কতটা গুরুত্বপূর্ণ? তারা শুধু পশুদের মত ইন্দ্রিয় অনুভূতিতে সময় নষ্ট করছে। তাই এটি খুব শিক্ষণীয় যে তিনি তার মনকে প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন যে "আপনি ভগবান শ্রী কৃষ্ণের আরাধনায় আপনার মনকে নিযুক্ত রাখুন।" দুর্লভ মানব-জন্ম সৎ-সঙ্গ। এবং মনের এই প্রশিক্ষণ শুধুমাত্র ভাল সঙ্গের মাধ্যমে সম্ভব, সৎ-সঙ্গ। সৎ-সঙ্গ অর্থ যে ব্যক্তি কেবলমাত্র ১০০ শতাংশ ঈশ্বরের সেবায় নিযুক্ত। তাকে সৎ বলা হয়। শতাং প্রসঙ্গাৎ। ভক্তদের সমর্থন ছাড়া, মনকে প্রশিক্ষিত করা অসম্ভব। এই তথাকথিত যোগব্যায়াম পদ্ধতি বা ধ্যানের মাধ্যমে সম্ভব নয়। আমাদের ভক্তদের সাথে সঙ্গ করতে হবে, অন্যথায় এটি সম্ভব নয়। এইজন্য আমরা এই কৃষ্ণ-সচেতন সমাজ গঠন করেছি, যাতে আমরা এই সঙ্গের লাভ পেতে পারি। তাই গোবিন্দ দাস, কবি এবং ভক্ত, পরামর্শ দিচ্ছেন, দুর্লভ মানব-জন্ম সৎ-সঙ্গ। "আপনি এই খুব ভাল, বিরল মানব শরীর পেয়েছেন। এখন ভক্তদের সাথে যোগ দিন এবং আপনার মনকে নিয়োজিত করুন কৃষ্ণের অভয় চরনপদ্মে।" তিনি আপনার মনকে অনুরোধ করছেন। তারপর তিনি জীবনের হতাশাজনক পরিস্থিতির ইশারা করছে। এটা কি? সিত আতপ বাত বরিশন এ দিন জামিনি জাগে রে। সিত মানে শীতকাল। আতপ মানে গীষ্মকাল, যখন ঝলসানো সূর্যালোক আছে। সিত আতপ বাত, ঠান্ডা, বারিষন, তেজ বৃষ্টি। তাই এই ঝামেলা সবসময় রয়ে যায়, কখনও কখনও এটি ঠান্ডা। কখনও কখনও এটি ভয়ানক তাপ। কখনও কখনও ভারী বৃষ্টি। কখনও কখনও এটা বা ওটা চলতে থাকে। তাই তিনি বলেন, সিত আতপ বার বরিষণ এ দিন জামিনি জাগে রে। সারা দিন এবং রাত, মানুষ খুব কঠিন কাজ করছে কোন পরোয়া না করে, প্রচন্ড ঠান্ডা, তীব্র তাপ এবং ভারী বৃষ্টি, এবং রাতে, মরুভূমি যাওয়া, সমুদ্রের নীচে নামছে - সর্বত্র তারা এত ব্যস্ত। সিত আতপ বার বরিষণ এ দিন জামিনি জাগে রে। রাতের কাজ আছে, এবং অনেক অন্যান্য কার্য আছে। তাই তিনি বলছেন, সিত আতপ বাত বরিষণ এ দিন জামিনি জাগে রে, বিফলে সেবিনু কৃপন দুরাজন চপল সুখ-লভ লাগি রে। "এখন, "এখন, এই কঠোর পরিশ্রমের ফলে আমি কী করেছি? আমি এমন কিছু লোককে সেবা করেছি যারা সব সময় বন্ধুত্বপূর্ণ নন, আমার কৃষ্ণের চেতনার প্রতি। এবং কেন আমি তাদের সেবা করেছি? চপল সুখ-ল্ভ লাগি রে। "চপল, খুব চঞ্চল সুখ। আমি ভাবছি যদি আমার ছোট বাচ্চা একটু হাসে তাহলে আমি সুখী হয়ে যাবো। যদি আমার স্ত্রী সুখী হয়, তবে আমি মনে করি আমি খুশি। কিন্তু এই সব অস্থায়ী হাস্যরস বা আনন্দ, এগুলি সব চপল।" এটাই আমাদের উপলব্ধি করতে হবে। অনেক কবিও আছে, একইভাবে গান গাইছে ... এই মন একটি মরুভূমি মত, এবং এটি সমুদ্রের জলের পিছনে উৎকন্ঠিত। একটি মরুভূমি, যদি একটি মহাসাগরে রাখা হয়, তাহলে এটি জলমগ্ন হতে পারে। এবং জলের ফোঁটার কি লাভ হতে পারে? একইভাবে, আমাদের মন, আমাদের চেতনা, সুখী সমুদ্রের পিছনে উৎকন্ঠিত। এবং পরিবার জীবনে এই অস্থায়ী সুখ, সমাজে, সেটা জলের ড্রপের মত। তাই দার্শনিক যারা আসলে বিশ্বের পরিস্থিতি অধ্যয়ন করেছেন, তারা বুঝতে পারে যে "এই আনন্দদায়ক পরিতোষ আমাকে খুশী করতে পারে না।" তারপর তিনি বলেন, কমল-দল-জল, জীবন টলমল। কমল-দল-জল মানে লিলি, লিলি ফুল। আপনারা সব হ্রদে কমল ফুল দেখেছেন। তারা দদুল্যমান হচ্ছে, সবসময় জলে। দোদুল্য। যে কোনও ভাবে, যেকোন সময় এটি ডুবে যেতে পারে। একইভাবে, এই জীবন সবসময় বিপদজনক, সর্বদা বিপদ ভরা। যে কোনও মুহুর্তে এটি শেষ হতে পারে অনেক উদাহরণ আছে। মানুষ এটা দেখছে, কিন্তু তারা ভুলে যায় এটা আশ্চর্যজনক। তারা প্রতি দিন, প্রতি মুহূর্তে দেখছেন যে, তারা নিজেরা বিপদে আছে, অন্যরা বিপদের মধ্যে আছে। তবুও, তারা মনে করে, "আমি নিরাপদ" এই পরিস্থিতি।