BN/Prabhupada 0004 - আজেবাজে কিছুতে আত্মসমর্পন করবেন না

From Vanipedia
Jump to: navigation, search
Go-previous.png Previous Page - Video 0003
Next Page - Video 0005 Go-next.png

আজেবাজে কিছুতে আত্মসমর্পন করবেন না
- Prabhupāda 0004


Lecture on BG 10.2-3 -- New York, January 1, 1967

প্রক্রিয়া... ভগবত গীতায় উল্লেখ করা হয় l তত্তবিদ্ধি প্রণিপাতেন পরিপ্রশ্নেন সেবয়া (ভা.গী.৪.৩৪) যদি আপনি আপ্রাকৃত বিজ্ঞান বুঝতে চান, তাহলে এই নীতি অনুসরণ করতে হবে। সেটা কি ? তত্তবিদ্ধি প্রণিপাতেন । আপনাকে আত্মসমর্পণ করতে হবে l একই ভাবে : যেমন নমন্তভো l যতক্ষণ না আপনি নতমস্তক হবেন, আপনি একটি সমর্পিত আত্মা হতে পারেন না l এবং কোথায় ? প্রণিপাত l কোথায় আপনি সেই ব্যক্তি পাবেন যে, সেই ব্যক্তি "এখানে একজন ব্যক্তি যেখানে আমি আত্মসমর্পণ করতে পারি "? তার মানে আমাদের একটি পরীক্ষা করতে হবে, কোথায় আত্মসমর্পণ করা যায় l সে টুকু জ্ঞান আপনার থাকতে হবে l কোন আজেবাজে লোকের কাছে আত্মসমর্পণ করবেন না l আপনাকে করতে হবে...কিন্তু কিভাবে বুদ্ধিমান লোক বা আজেবাজে লোকের মধ্যে পার্থক্য করবেন ? সেটা শাস্ত্রে উল্লেখ করা হয়েছে l সেটা কঠ উপনিষদে উল্লেখ করা হয়েছে । তত্তবিদ্ধি প্রণিপাতেন পরি...(ভা.গী.৪.৩৪) কঠ উপনিষদে বলা হয়েছে যে তৎ-বিজ্ঞাণার্থম স গুরুম এভাবিগচ্ছেৎ শ্রোত্রিয়াম ব্রহ্ম-নিষ্টাম [মু .উ. ১.২.১২] এই শ্রোত্রিয়াম এর অর্থ, যারা গুরু-শিষ্য পমম্পরার মাধ্যমে এসেছেন l এবং তার কি প্রমাণ যে তিনি গুরু-শিষ্য পমম্পরার মাধ্যমে এসেছেন l ব্রহ্ম-নিষ্টাম l ব্রহ্ম-নিষ্টাম-এর মানে তিনি পরম সত্যকে সম্পূর্ণরূপে বিশ্বাস করেন l তাই সেখানে আপনি আত্মসমর্পণ করুন l প্রণিপাত l প্রণিপাত মানে প্রত্যক্ষ-রুপেন নিপাতং, কোন খুঁতখুঁতুনি নেই l আপনি যদি এমন ব্যক্তি সন্মন্ধে জানতে পারেন, সেখানে আত্মসমর্পণ করুন l প্রণিপাতl এবং তার সেবা করার চেষ্টা করুন, তাকে সন্তুষ্ট করার চেষ্টা করুন, এবং তাকে প্রশ্ন করুন l গোটা ব্যাপারটাই প্রকাশ করবে l আপনাকে এই ধরনের প্রামাণিক ব্যক্তি খুঁজতে হবে এবং তাঁর নিকট আত্মসমর্পণ করতে হবে l তার সম্মুখে সমর্পন করা মানে ভগবানের সম্মুখে সমর্পন করা কারণ তিনি ভগবানের প্রতিনিধী l আপনি প্রশ্ন করতে পারেন , সময় অপব্যয় না করে, শুধু বোঝার জন্য l সেটাই পরিপ্রশ্ন l এটা পদ্ধতি l সুতরাং সবকিছু আছে l আমাদের শুধু অনুসরণ করতে হবে l কিন্তু যদি আমরা প্রক্রিয়া গ্রহণ না করে কেবল নেশা দ্বারা আমাদের সময় নষ্ট করি, এবং ফটকা এবং অর্থহীন কার্যক্রম করি, তাহলে কিছু সম্ভব নয় l তবে আপনি ভগবানকে বুঝতে পারবেন না l কারণ ভগবান এমনকি দেবতা এবং মহান মুনি দ্বারা বোধগম্য নয় l তাহলে আমাদের অতি ক্ষুদ্র প্রচেষ্টার আর কি কথা ? এটা পদ্ধতি l এবং যদি আপনি অনুসরণ করেন, অসংমূঢ়, অসংমূঢ়, যদি আপনি নীতি অনুসরণ করেন , এবং ধীরে ধীরে অথচ নিশ্চিত, অসংমূঢ়, কোনো সন্দেহ ছাড়াই , যদি আপনি করেন, এটা প্রতক্ষ্য আবোগমম ধর্মম। আপনি যদি পালন করেন, তাহলে আপনি আপনাকে বুঝতে পারবেন " হ্যাঁ l আমি কিছু পেয়েছি l " এটা নয় যে আপনি অন্ধ, আপনি অন্ধভাবে অনুসরণ করছেন l আপনি যদি নীতি অনুসরণ করেন , আপনি বুঝতে পারবেন l ঠিক যেমন যদি আপনি পুষ্টিকর খাবার খান , আপনি শক্তি অনুভব করবেন এবং আপনার ক্ষুধা নিবৃত্তি হবে l আপনাকে কাউকে জিজ্ঞাসা করতে হবে না l আপনি নিজেই অনুভব করতে পারবেন l একইভাবে, যদি আপনি সঠিক পথে আসেন এবং যদি আপনি নীতি অনুসরণ করেন , আপনি বুঝতে পারবেন, "হ্যাঁ, আমার উন্নতি হচ্ছে l " প্রত্যক্ষ...নবম অধ্যায়ে তিনি বলেছেন প্রতক্ষ্য আবোগমম ধর্মম সুসুখম l এবং খুব সহজ l এবং আপনি খুশি মেজাজে করতে পারেন l এবং প্রক্রিয়া কি ? আমরা হরে কৃষ্ণ জপ করি এবং প্রসাদ পাই l এবং ভগবত গীতা-দর্শন পাঠ করি ,সুন্দর বাদ্যযন্ত্র ধ্বনি শুনিl এটা কি খুব কঠিন? এটা কি খুব কঠিন? মোটেত্ত না l তাই এই প্রক্রিয়ার দ্বারা আপনি অসংমূঢ় হবেন l কেউ আপনাকে ঠকাতে পারবে না l কিন্তু আপনি যদি চান প্রতারিত হতে তাহলে অনেক ধূর্ত আছে l সুতরাং একজন প্রতারক হবেন না এবং প্রতারিত সমাজ করবেন না l শুধু পরম্পরা পদ্ধতি অনুসরণ করুন যেমন বৈদিক সাহিত্যে লেখা আছে এবং কৃষ্ণ দ্বারা অনুমোদিত l প্রামাণিক উৎস থেকে এটি বুঝতে চেষ্টা করুন এবং আপনার জীবনে তা প্রয়োগ করার চেষ্টা করে দেখুন l তারপর অসমমূঢ় সমত্যেষু l মত্যেষু অর্থ ... মত্যে অর্থ যারা মরার জন্য উপযুক্ত l কারা তারা ? এই বদ্ধ আত্মারা, ব্রহ্মা থেকে শুরু করে ক্ষুদ্র পিঁপড়ে পর্যন্ত্য, তারা সবই মত্যে l মত্যে মানে একটি সময় যখন তারা মরে যাবে l সুতরাং মত্যেষু l মৃত্যুর মানুষদের মধ্যে তিনি সবচেয়ে বুদ্ধিমান । অসমমূঢ় সমত্যেষু। কেন ? সর্ব -পাপৈরমুচ্যতে। তিনি সব ধরণের পাপিষ্ঠ ক্রিয়ার প্রতিক্রিয়া থেকে মুক্ত l এই পার্থিব জগতে, এই বিশ্বে, আমি বলি, জ্ঞাতসারে অথবা অজ্ঞাতসারে, আমরা সব সবসময় পাপ কাজ করি l তাই আমাদের এই বিক্রিয়ার বাইরে আসতে হবে l এবং কিভাবে বাইরে আসতে হবে ? সেটা ভগবত গীতাতে বলা হয়েছে l যজ্ঞার্থাৎ কর্মনো অনত্র লোকো অয়ং কর্ম বন্ধন (ভা.গী.৩.৯) যদি আপনি শুধুমাত্র কৃষ্ণের জন্য কাজ করেন ... যজ্ঞ অর্থ বিষ্ণু বা কৃষ্ণ l যদি আপনি শুধুমাত্র কৃষ্ণের জন্য কাজ করেন ,তাহলে যেকোনো প্রতিক্রিয়া থেকে মুক্ত হবেন l শুভাশুভ প্রলীয় l আমরা কিছু শুভ বা অশুভ কার্য করি l কিন্তু যারা কৃষ্ণ চেতনায় আছেন এবং যারা সে ভাবে কাজ করেন, তার জন্যে শুভ বা অশুভ কিছুই করার নেই l কারণ তিনি সবচেয়ে শুভ কৃষ্ণের সাথে আছেন l সুতরাং সর্বপাপৈ প্রমুচ্যতে l তিনি সব ধরণের পাপ ক্রিয়ার প্রতিক্রিয়া থেকে মুক্ত l এটা পদ্ধতি l এবং যদি আমরা এই প্রক্রিয়া গ্রহণ করি, এবং শেষ পর্যন্ত আমরা কৃষ্ণের সাথে যোগাযোগ করতে পারি , তবে আমাদের জীবন সফল l এই পদ্ধতি খুব সহজ, এবং আমরা সবাই, অবলম্বন করতে পারি l আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।