BN/Prabhupada 0298 - যদি আপনি কৃষ্ণকে সেবা করার জন্য উৎসুক থাকেন, এটাই প্রকৃত সম্পত্তি

From Vanipedia
Jump to: navigation, search
Go-previous.png Previous Page - Video 0297
Next Page - Video 0299 Go-next.png

যদি আপনি কৃষ্ণকে সেবা করার জন্য উৎসুক থাকেন, এটাই প্রকৃত সম্পত্তি
- Prabhupāda 0298


Lecture -- Seattle, October 4, 1968

প্রভুপাদঃ কোন প্রশ্ন আছে? বিষ্ণুজনঃ কীভাবে আমরা কৃষ্ণকে সঠিক সেবা প্রদান করতে পারি? প্রভুপাদঃ আপনার উদ্বেগ থেকে (হাসি, "হরিবোল") আপনি যদি কৃষ্ণকে সবা করতে আগ্রহী হন, তাহলে সেইটি আসল সম্পত্তি। কৃষ্ণ অসীম। আমরা তার কি সেবা করতে পারি? এবং তার অসীমিত সেবকও আছে। তার আপনার এবং আমার কাছ থেকে কি সেবা চাই? তিনি নিজেই পরিপূর্ন। তার কোনও পরিষেবার প্রয়োজন নেই। কিন্তু যদি আপনি তাদের সেবা করতে আগ্রহী হন, তিনি অস্বীকার করবেন না। এই তার করুণা, এটা তার উদারতা। তাই যতো আপনি আরো কৃষ্ণের সেবার জন্য আপনার উদ্বেগ বৃদ্ধি করবেন, আরো এটি সম্পূর্ণ হয়ে যায়। তিনি সীমাহীন। আপনার উদ্বেগে, আপনি সীমাহীন হয়ে যান। তাই প্রতিযোগিতা আছে। আপনি যত বেশি কৃষ্ণের সেবা করবেন, ততই তিনি আপনাকে গ্রহণ করবেন এবং আরো তিনি আপনাকে জ্ঞান প্রদান করবেন। তুমি কি দেখতে পাচ্ছ? তাই আধ্যাত্মিক জগত অসীম। সেবার কোন শেষ নেই এবং পরিষেবা স্বীকার করার কোন শেষ নেই। এটা এইরকম না। অতএব উৎসুকতা। তত্র লৌল্যম এক মূল্যম। এটা হচ্ছে ... আমি উত্তর তৈরি করছি না, কিন্তু আমি, আমাদের আচার্য রূপ গোস্বামী থেকে, আপনাকে প্রমাণ দিচ্ছি। তিনি বলেছেন, কৃষ্ণ-ভক্তি-রস-ভাবিতা মতি ক্রীয়তাম যদি কূটপি ল্ভ্যতে। "আমার প্রিয় মানুষ, আমার প্রিয় ছেলেমেয়ে, আপনি যদি কিনতে পারেন..., আপনার ইন্দ্রিয়কে কৃষ্ণের ভালোবাসার জন্য - ' কীভাবে আমি কৃষ্ণকে আরও বেশি ভালবাসতে পারি' - এই উদ্বেগ, যদি আপনি এই মতি কিনতে পারেন: "- মানে বুদ্ধি; এটি একটি খুব ভাল বুদ্ধি, 'আমি কৃষ্ণকে কীভাবে সেবা করতে পারি?' কৃষ্ণ-ভক্তি-রস-প্রতিভাতি মতি। মতি মানে বুদ্ধি অথবা মনের স্থিতি, যে "আমি কৃষ্ণকে সেবা করব।" "আপনি যদি এই মানসিক অবস্থা কোথাও কিনতে পারেন তবে তা অবিলম্বে কিনুন।" তারপর পরবর্তী প্রশ্ন হবে "ঠিক আছে, আমি কিনে নেব। কি দাম, আপনি জানেন? "হ্যাঁ, আমি দাম জানি।" "দাম কি?" "লোলম, শুধু তোমার আগ্রহ, ব্যাস।" লৌল্যম একং মূল্যম। "অহ, আমি এটা পেতে পারি।' না না জন্ম কোটিভিস সুকৃতিভির লভ্যতে। এই কৌতূহল, কীভাবে কৃষ্ণকে প্রেম করবেন, অনেক জন্মের পরও পাওয়া যায় না। তাই যদি আপনার কাছে সেই উদ্বেগ একটি চিম্টিও থাকে, "কিভাবে আমি কৃষ্ণ সেবা করতে পারি?" আপনি অবশ্যই জানবেন যে আপনি সবচেয়ে ভাগ্যবান মানুষ। শুধুমাত্র একটু খানি, লৌলম, চিন্তা, "আমি কিভাবে কৃষ্ণের সেবা করতে পারি?" এটা খুব ভালো। তাহলে কৃষ্ণ আপনাকে বুদ্ধি প্রদান করবেন। তেষাম স্তত-যুক্তানাম ভজতাং প্রীতি পূর্বকম বুদ্ধি-যোগং দদামি তং...(ভ.গী ১০.১০) "যে আমার প্রতি ভালবাসা এবং স্নেহের সাথে নিষ্ঠা সহকারে যুক্ত, কোন ভণ্ডামি ছাড়া?" তারপর শ্রী কৃষ্ণ সবকিছু বুঝতে পারেন। তিনি আপনার মধ্যে, আমার মধ্যে আছেন। তারপর তিনি আপনাকে বুদ্ধি দেবেন: "হে আমার প্রিয় ছেলে, তুমি এইভাবে কর।" এবং তাই করে, সে কি অর্জন করবে? যেন মাং উপজান্তিতে: "তিনি আমার কাছে ফিরে আসবেন।" আর সেখানে গিয়ে তার কি লাভ হবে? যদ গত্বান ন নিবর্ততে তদ ধাম পরমম মম (ভ.গী ১৫.৬) মাম হি পার্থ ব্যাপাশ্রিত যোহপি সু পাপ-যোনয় (ভ.গী ৯.৩২)। দুঃখালয়ম অশাশ্বতম (ভ.গী ৮.১৫)। অনেক আছে, অনুগ্রহ করে ভগবত গীতা যথাযথভাবে পড়ুন। আপনি সঠিক জ্ঞান পাবেন, ভগবানের বিজ্ঞান। এটি একমাত্র মানুষদের অধ্যয়ন। তাই শুধু আপনার উৎসুকতাই কৃষ্ণ সেবার পরিপূর্ণতা। উৎসুকতা বৃদ্ধি। এবং উৎসুকতা মানে আপনি যদি কৃষ্ণকে ভালোবাসেন, তাহলে আপনার প্রেম বৃদ্ধির সাথে সাথে উৎসুকতা বৃদ্ধি পাবে: "কীভাবে আমি কৃষ্ণকে সেবা করতে পারি?" কারন আপনি একজন স্বেচ্ছাসেবী, কেউ আপনাকে বাধ্য করছে না। এর মানে হল যে কৃষ্ণকে ভালোবাসা ছাড়া কিভাবে উৎসুকতা বৃদ্ধি পাবে? কৃষ্ণকে ভালবাসার জন্য অনেক কিছু আছে। শুরু হচ্ছে শ্রবন কির্তন দ্বারা। এই শ্রবনম, শোনা এবং কির্তন। শোনা, আপনি হরে কৃষ্ণের কথা শুনছেন, আপনি ভগবত গীতা শুনছেন, আপনি শ্রীমদ-ভগবত, কৃষ্ণের কথা শুনছেন, এবং কির্তন। এই হচ্ছে শুরু সুতরাং, স্বাভাবিকভাবেই, শ্রবনম কির্তনম বিষ্ণু স্মরণং পাদ-সেবনম অর্চনম বন্দনম দাস্যম সখ্যম আত্ম নিবেদনম (শ্রী.ভা.৭.৫.২৩) কৃষ্ণের সেবায় এই ধরনের ৯টি বিভিন্ন ভাগ আপনাকে আলোকিত করবে, আপনি শ্রীকৃষ্ণ ভাবনামৃতে অগ্রসর হবেন এবং আপনার জীবন সফল হবে। অন্য কোন প্রশ্ন? বুঝতে চেষ্টা করুন, প্রশ্ন। এমন নয় যে আমরা জোরপূর্বক করতে বলছি, আপনার বুদ্ধি আছে। কৃষ্ণ আপনাকে বুদ্ধি দিয়েছেন। আপনার বুদ্ধির সঙ্গে এটি বুঝতে চেষ্টা করুন, কিন্তু এটি এড়ানোর চেষ্টা করবেন না। আপনি বোঝার জন্য প্রশ্ন করুন, এড়ানোর জন্য প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করবেন না। দুটি ধরনের প্রশ্ন আছে। এই প্রশ্ন আপনাকে সাহায্য করবে না। যদি আপনি পালাতে চেষ্টা করেন, তবে কৃষ্ণ আপনাকে পালাতে সাহায্য করবেন, এবং যদি আপনি কৃষ্ণকে ধরতে চান, তবে কৃষ্ণ আপনাকে, কীভাবে ধরতে পারবেন তার জন্য আপনাকে সাহায্য করবেন। দুটি জিনিস আছে আপনি যেটা চান সেই পথ গ্রহণ করতে পারেন। যেযথা মাং প্রপদন্তে ত্বাংস তথৈব ভজামি অহম (ভ.গী. ৪.১১) ব্যক্তির দৃষ্টিভঙ্গী অনুযায়ী, কৃষ্ণ ব্যক্তিটিকে সাহায্য করেন। যদি ... অনেক দার্শনিকের মতো ... তারা কৃষ্ণকে ভুলে যেতে চান। রাধাকৃষ্ণানের বইতে আপনি যেমন পাবেন কৃষ্ণ নবম অধ্যায় বলেছিলেন, মন্মনা ভব মদ-ভক্তো মদজাজী মাং নমশকুরু (ভ.গী .১৮.৬৫) অনুবাদটি ঠিক আছে, কিন্তু তারা মন্তব্য করে, "কৃষ্ণকে আপনার কাছে আত্মসমর্পণ করতে হবে না" এর মানে হল যে তার বই লেখার পুরো প্রক্রিয়া মানুষকে ভ্রান্ত করার জন্য, কীভাবে আমরা কৃষ্ণকে ভুলে যেতে পারি। সুতরাং যদি কেউ কৃষ্ণকে ভুলে যেতে চান, তবে কৃষ্ণ তাঁকে এমন বুদ্ধি দেবেন যে তিনি কৃষ্ণকে কখনোই বুঝতে পারবেন না। কিন্তু যদি কেউ কৃষ্ণকে বুঝার চেষ্টা করেন, ভালবাসার চেষ্টা করেন, তাহলে তিনি সম্পূর্ণ বুদ্ধি দেবেন। আপনি বুঝতে পারবেন। এটা শ্রী কৃষ্ণ। আপনার সম্পূর্ণ স্বাধীনতা রয়েছে। কিন্তু যদি আপনি কৃষ্ণকে ভুলে যান, তাহলে মায়াকে সেবা করতে হবে, আর যদি আপনি কৃষ্ণকে ভালোবাসেন তাহলে মায়া আপনাকে ছেড়ে যাবে।