BN/Prabhupada 0189 - ভক্তকে তিনগুণের উপরে রাখুন

From Vanipedia
Jump to: navigation, search
Go-previous.png Previous Page - Video 0188
Next Page - Video 0190 Go-next.png

ভক্তকে তিনগুণের উপরে রাখুন
- Prabhupāda 0189


Lecture on SB 6.1.46 -- San Diego, July 27, 1975

আপনি প্রকৃতির আইন পরিবর্তন করতে পারবেন না। অস্তিত্বের জন্য সংগ্রাম: আমরা প্রকৃতির আইন জয় করার চেষ্টা করছি। সেটা সম্ভব না। দৈবী হেষ্যা গুণময়ী মম মায়া দুরত্যয়া (ভ.গী ৭.১৪) সুতরাং এইগুলি অধ্যয়নের বিষয়। কেন কিছু আছে, সব কিছু অসুখী এবং সুখী? এই গুণাবলী অনুযায়ী। এখানে বলা হয় যে, "যেহেতু এখানে আমরা এই জীবনে দেখতে পাই, জীবনের সময়কালে বিভিন্ন ধরনের প্রজাতি আছে, তেমনই গুন বৈচিত্রা, গুন বৈচিত্র্যের দ্বারা, গুন বৈচিত্রা," তথা অন্যত্র অনুমিয়তে। অন্যত্র মানে পরবর্তি জীবনে অথবা পরবর্তী গ্রহ বা পরবর্তী কিছু। সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। ত্রৈগুন্য বিষয়া বেদা নিস্ত্রৈগুন ভবার্জুন। কৃষ্ণ অর্জুনকে উপদেশ দিচ্ছেন " যে "সমগ্র জড় বিশ্ব এই তিনটি গুন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে।" গুন বৈচিত্র। তাই আপনাকে নিস্ত্রৈগুন হতে হবে, যেখানে এই তিন গুন কাজ করবে না। নিস্ত্রৈগুন ভবার্জুন। তাই কিভাবে আপনি এই তিন গুন বন্ধ করতে পারবেন। এটি ভগবৎ-গীতা ভাষায় ব্যাখ্যা করা হয়েছে, মাং চ ব্যভচারিন ভক্তি যোগেন এ সেবতে স গুনান সমতিতৈতান ব্রহ্মভুয়ায় কল্পতে (ভ.গী.১৪.২৬) যদি আপনি নিজেকে নিখুঁত ধার্মিক সেবায় নিয়োজিত রাখেন, অবিলম্বে, কোন বাধা ছাড়া। তারপর আপনি সবসময় এই তিনটি গুনের উপরে, চিন্ময় স্তরে থাকবেন। তাই আমাদের কৃষ্ণ ভাবনামৃত আন্দোলন ভক্তদের এই তিনটি গুনের উপরে রাখে। সমুদ্রের মতো, যদি আপনি মহাসাগরে পতিত হন, তবে এটি অত্যন্ত বিপজ্জনক অবস্থান। কিন্তু যদি কেউ আপনাকে সমুদ্রের পানি থেকে উত্তোলন করে এবং সমুদ্রের জল থেকে এক ইঞ্চি উপরে রাখতে সাহায্য করে, তবে কোন বিপদ নেই। আপনার জীবন সংরক্ষিত হয়। তাই এটি চাই, এই গুন বৈচিত্র, যদি আপনি নিজেকে এই ধরনের জীবন থেকে সংরক্ষণ করতে চান, জন্ম, মৃত্যু, বৃদ্ধ বয়স এবং রোগ, এবং অনেক ধরনের জীবন গ্রহণ করে ... ঠিক যেমনটি আপনি হাঁটার সময় বলছিলেন যে ক্যালিফোর্নিয়ার গাছ আছে; তারা পাঁচ হাজার বছর ধরে জীবিত আছে। এটা আরেকটি ভিন্ন ধরনের জীবন। মানুষ অনেক বছর ধরে বাঁচতে চেষ্টা করছে। প্রকৃতির উপায় দ্বারা, এখানে একটি গাছ আছে, পাঁচ হাজার বছর ধরে। তাই কি সেই জীব খুব লাভজনক, বনের মধ্যে পাঁচ হাজার বছর ধরে দাঁড়িয়ে আছে? তাই এই জড় বিশ্বের মধ্যে বিভিন্ন কোন জীবন ভাল নয়, আপনি দেবতা হন বা গাছ হন বা এই সেই যাই হন। এটা শিক্ষা। এটা শিক্ষা। তাই একজনকে বুঝতে হবে যে কোনও বিভিন্ন জীবনে, দেবতা রূপে হোক বা কুকুর হিসাবে, এখানে জীবন কষ্টকর। এমনকি দেবতারাও, তারা অনেক বিপদের মধ্যে পরেছেন, অনেকবার, এবং তারা ভগবানের সাথে যোগাযোগ করেছেন। তাই এখানে সবসময় বিপদ। পদম পদম যত বিপদম (শ্রী.ভা.১০.১৪.৫৮) এটা এই জড় বিশ্বকে বিপদহীন করার ব্যর্থ চেষ্টা। সেটা সম্ভব না। যেমন দেহের বিভিন্ন ধরণের প্রজাতি আছে, বিভিন্ন ধরনের বিপদ, বিপর্যয়, একের পর এক হতে হবে... সব থেকে ভাল জিনিস হলো, তাই এই জড় কাজ বন্ধ করুন। সেটা বৈদিক সভ্যতা। সমগ্র বৈদিক সভ্যতা এই ধারণার উপর ভিত্তি করে, "এই অর্থহীন ব্যবসা বন্ধ করুন, জন্মের পুনরাবৃত্তি, মৃত্যু, বার্ধক্য।" অতএব কৃষ্ণ বলেছেন, জন্ম মৃত্যু জরা ব্যাধি দুঃখ দোষানুদর্শনম (ভ.গী.১৩.৯) এই হচ্ছে জ্ঞান। কি জ্ঞান, এই প্রযুক্তিগত জ্ঞান, এই জ্ঞান? আপনি এই জিনিসগুলি থামাতে পারবেন না। সুতরাং প্রধান কাজ হল কিভাবে এটি বন্ধ করা যায়। এবং কারণ তারা বোকা মানুষ, তারা মনে করে যে "এই জিনিস থামানো যাবে না। আসুন আমরা জন্ম ও মৃত্যুর পুনরাবৃত্তি নিয়ে চলি, এবং প্রত্যেকের জীবনে আমাদের অস্তিত্বের জন্য সংগ্রাম করি। " এই জড় সভ্যতা, অজ্ঞতা, অজ্ঞান। জ্ঞান ভগবান শ্রীকৃষ্ণ দ্বারা দেওয়া হয় যেটা "এখানে সমাধান। জন্ম কর্ম চ মে দিব্যম যো জানাতি তত্ত্বত, ত্বক্তা দেহং পুনর জন্ম নৈতি (ভ.গী ৪.৯) সমস্যা হচ্ছে পুনর জন্ম, জন্মের পুনরাবৃতি, এবং যদি আপনি বন্ধ করতে চান তাহলে কৃষ্ণকে বোঝার চেষ্টা করুন। তাহলে আপনি বন্ধ করতে পারবেন। যখনই আপনি কৃষ্ণকে বুঝবেন... কৃষ্ণকে বোঝা মানে যদি আপনি অন্ধভাবেও গ্রহণ করেন, সেটাই উপকারী। কৃষ্ণ বলেছেন, তিনি কি, যে তিনি পরম ভগবান, শুধু আপনি গ্রহণ করুন, এটাই শেষ। সহজভাবে এই বিশ্বাস আছে, যে "কৃষ্ণ হল পরম পুরুষ ভগবান।" এটা আপনাকে যথেষ্ট উন্নত করতে হবে। কিন্তু জড় ব্যক্তির জন্য এটি খুবই কঠিন। তাই কৃষ্ণ বলেছেন, বহুনাম জন্মনাম অন্তে (ভ.গী ৭.১৯) অনেক প্রচেষ্টা করার পর, অনেক জন্ম।" বহুনাম জন্মনাম অন্তে জ্ঞানবান মাম প্রপদ্যতে, জ্ঞানবান, যে আসলেই বুদ্ধিমান? সে কৃষ্ণকে আত্মসমর্পন করেন। অন্যথায় ন মাং দুষ্কৃতিনো মুঢা প্রপদন্তে নরাধমা (ভ.গী ৭.১৫) "অন্যথায় তিনি কুৎসিত এবং পাপী কার্যকলাপে জড়িত থাকবে, মানবজাতির সর্বনিম্ন, জ্ঞান গ্রহণ করা হয়।" ন মাং প্রপ্যদন্তেঃ সে কখনো কৃষ্ণকে আত্মসমর্পন করে না।"