BN/Prabhupada 0398 - শ্রীকৃষ্ণচৈতন্য প্রভু - তাৎপর্য

From Vanipedia
Jump to: navigation, search
Go-previous.png Previous Page - Video 0397
Next Page - Video 0399 Go-next.png

শ্রীকৃষ্ণচৈতন্য প্রভু - তাৎপর্য
- Prabhupāda 0398


Purport to Sri Krsna Caitanya Prabhu -- Los Angeles, January 11, 1969

শ্রী-কৃষ্ণ-চৈতন্য প্রভু দয়া কর মোরে, তোমা বিনা কে দয়ালু জগত-মাঝারে। এই গানটি নরোত্তম দাস ঠাকুর দ্বারা রচিত। তিনি ভগবান চৈতন্যের কাছে প্রার্থনা করছেন, "হে আমার প্রিয় প্রভু, দয়া করে আমার প্রতি কৃপা করুন, প্রভু আপনার তুলনায় আরো করুণাময় এই তিন জগতের মধ্যে কে হতে পারে? বাস্তবিকই, এটি সত্য। শুধু নরোওম দাস ঠাকুরই নয়, রূপ গোস্বামীও, তিনি ভগবান চৈতন্যের কাছে প্রার্থনা করেন, যখন তারা উভয়েই প্রয়াগে, এলাহাবাদে দেখা করেন, ভগবান চৈতন্য এবং রূপ গোস্বামীর প্রথম সাক্ষাৎ হয় প্রয়াগে। সেই সময় রূপ গোস্বামী বলেন, "হে আমার প্রিয় প্রভু,আপনি সমস্ত অবতারের মধ্যে সবচেয়ে উদার। কারন আপনি কৃষ্ণ প্রেম, কৃষ্ণ ভাবনামৃত বিতরন করছেন।" অন্য কথায়, যখন কৃষ্ণ ব্যক্তিগতভাবে উপস্থিত ছিলেন, তিনি আমাদেরকে শুধু আত্মসমর্পণ করতে বলেছিল, কিন্তু তিনি নিজেকে এত সহজেই বিতরণ করেন নি। তারা শর্তটি রাখেন যে, "প্রথমে আপনি আত্মসমর্পণ করুন।" কিন্তু এখানে, এই অবতারের মধ্যে, প্রভু চৈতন্য, যদিও তিনি নিজে কৃষ্ণ, তার কোনও শর্ত নেই। তিনি শুধু বিতরণ করছেন, "কৃষ্ণ-প্রেম।" অতএব, প্রভু চৈতন্যকে সবচেয়ে উদার অবতার বলে মনে করা হয়, এবং নরোত্তম দাস ঠাকুর বলছেন, "দয়া করে আমার প্রতি কৃপা করুন। আপনি এত উদার কারণ আপনি এই যুগে পতিত আত্মাদের দেখেছেন, এবং আপনি তাদের প্রতি খুব সদয়। কিন্তু আপনি এটাও জানেন যে আমি সবচেয়ে পতিত। কেউ আমার চেয়ে আরও অধঃপতিত নয়।" পতিত পাবন হেতু তব অবতার। "আপনার অবতার শুধুমাত্রবদ্ধ আত্মা, পতিত আত্মাদের ফরিয়ে নিয়ে যেতে হয়েছে। কিন্তু আমি আপনাকে আশ্বস্ত করছি, আপনি আমার চেয়ে আর কোন পতিত পাবেন না। তাই আমার অনুরোধ প্রথম।" তারপর তিনি ভগবান নিত্যানন্দের কাছে প্রার্থনা করছেন। তিনি বলছেন, হা হা প্রভু নিত্যানন্দ, প্রমানন্দ সুখী। "হে আমার প্রভু নিত্যানন্দ, আপনি সর্বদা আনন্দিত, আধ্যাত্মিক পরমানন্দে এবং আপনি অর্বিভূত হয়েছেন প্রসন্ন চিত্তে। তাই আমি তোমার কাছে এসেছি কারণ আমি খুবই দুঃখি। তাই যদি আপনি আমার উপর আপনার কৃপা দৃষ্টি প্রদান করেন, তাহলে আমিও সন্তুষ্ট হতে পারি।" তারপর তিনি অদ্বৈত প্রভুর কাছে প্রার্থনা করেছেন: হা হা, প্রভু সিতা-পতি অদ্বৈত গোঁসাই। অদ্বৈত প্রভুর পত্নীর নাম ছিল সিতা। অতএব, তাই কখনও কখনও তাঁকে সিতা-পতি হিসাবে উল্লেখ করা হয়। তাই, "আমার প্রিয় অদ্বৈত প্রভু, সিতা দেবীর পতি, দয়া করে আমাকে আশীর্বাদ করুন, কারণ আপনি যদি আমাকে দয়া করেন, তাহলে স্বাভাবিকভাবেই প্রভু চৈতন্য ও নিত্যানন্দ আমাকে আশীর্বাদ করবেন।" বাস্তবে কারণ এই যে, অদ্বৈত প্রভু, প্রভু চৈতন্যকে আহ্বান করেছিলেন অবতরন হবার জন্য। যখন অদ্বৈত প্রভু পতিত আত্মা দেখেছেন, তারা সব ইন্দ্রিয় সন্তুষ্টিতে জড়িত। বিনা কৃষ্ণ ভাবনামৃত বুঝে, তার এই পতিত আত্মাদের জন্য অনেক দয়া হয়েছে, এবং তিনি অনুভব করেছিলেন যে তিনি অসমর্থ এই সমস্ত পতিত আত্মাদের মুক্তি দিতে। তিনি ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কাছে প্রার্থনা করেছিলেন, "আপনি যদি নিজে আসেন। আপনার ব্যক্তিগত উপস্থিতি ছাড়া, এই পতিত আত্মাদের উদ্ধার করা সম্ভব নয়।" তাই প্রভু চৈতন্য আর্বিভূব হয়েছেন তার আমন্ত্রনে। "স্বাভাবিকভাবেই ..." নরোত্তম দাস ঠাকুর প্রার্থনা করছেন, অদ্বৈত প্রভুকে "যদি আপনি আমাকে আশীর্বাদ করেন, স্বাভাবিকভাবেই ভগবান চৈতন্য ও নিত্যানন্দ আমাকে আশীর্বাদ করবেন।" তারপর তিনি গোস্বামীদের কাছে প্রার্থনা করছেন, হা হা স্বরূপ, সনাতন, রূপ, রঘুনাথ। "আমার প্রিয় গোস্বামী প্রভু," স্বরূপ। স্বরুপ দামোদর ছিলেন ভগবান চৈতন্যের ব্যক্তিগত সচিব। তারা সবসময় চৈতন্য মহাপ্রভুর সাথে থাকতেন, এবং যা কিছু তিনি চাইতেন, সে তাড়াতাড়ি তার ব্যবস্থা করতেন। দুইজন ব্যক্তিগত সেবক, স্বরুপ দামোদর এবং গোবিন্দ, তারা সবসময় ভগবান চৈতন্যের সাথে থাকতেন, তাই নরোত্তম দাস ঠাকুর স্বরূপ দামোদরের কাছে প্রার্থনা করছেন। এবং তারপর গোস্বামীগন। চৈতন্যের পরবর্তী শিষ্যগণ ছিলেন ছয়জনগোস্বামী। শ্রীরূপ, শ্রীসনাতন, শ্রীভট্ট রঘুনাথ, শ্রীগোপাল ভট্ট গোস্বামী, শ্রীজীব গোস্বামী এবং রঘুনাথ দাস গোস্বামী। এই ছয় গোস্বামী্দের সরাসরি ভগবান চৈতন্য দ্বারা নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, কৃষ্ণ ভাবনামৃত আন্দোলনের বিস্তার করার। নরোত্তম দাস ঠাকুর তাঁর দয়ার জন্য প্রার্থনা করছেন। এবং ছয় গোস্বামীর পরে, পরবর্তী আচার্য শ্রীনিবাস আচার্য ছিল। তাই তিনি শ্রীনিবাস আচার্যকেও প্রার্থনা করছেন। প্রকৃতপক্ষে, নরোত্তম দাস ঠাকুর, শ্রীনিবাস আচার্যের পরে, পরম্পরা ধারায় উত্তরাধিকারী ছিলেন। অথবা তিনি প্রায় সমকালীন ছিলেন। এবং তাঁর ব্যক্তিগত বন্ধু রামচন্দ্র, রামচন্দ্র চক্রবর্তী ছিলেন। তাই তিনি প্রার্থনা করছেন, "আমি সর্বদা রামচন্দ্রের সঙ্গ প্রার্থনা করি।" ভক্তদের সঙ্গ। পুরো প্রক্রিয়ায় আমাদের সবসময় সিনিয়র আচার্যদের আশীর্বাদ প্রার্থনা করা উচিত। এবং আমাদের বিশুদ্ধ ভক্তদের সঙ্গে থাকা উচিত। তারপর কৃষ্ণ ভাবনামৃতে অগ্রগতিতে, আমরা প্রভু চৈতন্য এবং ভগবান কৃষ্ণের অনুগ্রহ লাভ করতে সক্ষম হব। এটা নরোত্তম দাস ঠাকুর দ্বারা গীত, এই গানের সারাংশ।